Home Akhaura আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ শিপন হায়দারের নিরঙ্কুশ জয়

আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ শিপন হায়দারের নিরঙ্কুশ জয়

0
আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ শিপন হায়দারের নিরঙ্কুশ জয়

মোঃ আলমগির উসমান ভুঁইয়া, আখাউড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ
আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনের মেয়র ও কাউন্সিলর ফলাফল পাওয়া গেছে। মেয়র হিসেবে বেসরকারিভাবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী তাকজিল খলিফা কাজল বিজয়ী হয়েছেন। আর ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ শিপন হায়দার নিরঙ্কুশভাবে জয় লাভ করেন। ফলাফল আসার পর তাৎক্ষনিক এক প্রতিক্রিয়ায় মোঃ শিপন হায়দার বলেন, এই বিজয় সবার। এই বিজয় ভালবাসার। এই বিজয় ৫নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনগনের। আশা করছি সবাই আমার পাশে থাকবেন এবং এই ওয়ার্ডকে এগিয়ে নিতে সবাই সহযোগিতা করবেন।

তিনি আরও বলেন, আমার ভাই সাগর হোসেনসহ নির্বাচনী প্রচারণা থেকে শুরু করে ফলাফল পর্যন্ত সকল সহযোদ্ধাদের জানাই অনেক ধন্যবাদ ও বিশেষ অভিনন্দন। যারা যারা আমায় ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ এবং তাদের পাশে আমি সব সময়ই আছি ও থাকবো।

এছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাঝে ১নং ওয়ার্ডের স্বপন মিয়া, ২নং ওয়ার্ডের তাকবির খাদেম, ৩নং ওয়ার্ডের এনাম খাদেম, ৪নং ওয়ার্ডের মোঃ ইমরান, ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ শিপন হায়দার, ৬নং ওয়ার্ডের সুজন মিয়া, ৭নং ওয়ার্ডের শেখ ঈশান, ৮নং ওয়ার্ডের বাবুল সর্দার এবং ৯নং ওয়ার্ডের বাহার মিয়া বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল আখাউড়া পৌরসভায় পর পর তিন বার বিজয়ী হলেন। এলাকাবাসী পক্ষ থেকে অনেক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। কাজল পেয়েছেন ১৫ হাজার ১৪৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী জয়নাল আবেদীন আব্দু ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৭৭৮ ভোট, এছাড়া নারিকেল গাছ প্রতীকে মোঃ নূরুল হক ভূঁইয়া পেয়েছেন ৫৬২ ভোট, মোবাইল ফোন প্রতীকে মোঃ শফিকুল ইসলাম পেয়েছেন ২৪৪ ভোট৷

এর আগে আখাউড়া পৌরবাসী এক উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দিয়েছেন তাদের নিজ নিজ পছন্দের প্রার্থীকে। এবার ভোট গ্রহন করা হয় ইভিএম পদ্ধতিতে। আখাউড়া পৌরসভার ১১টি ভোট কেন্দ্রের ৮২টি ভোট কক্ষে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. জিল্লুর রহমান বলেন, প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ সুষ্ঠ এবং সর্বোপরি শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহন হয়েছে।